আপনার লেখা আর্টিকেল আমাদের সাইটে পাবলিশ করুন

ইউভেন্তুসকে প্রথম হারের স্বাদ দিল ফিওরেন্তিনা

ইউভেন্তুসকে প্রথম হারের স্বাদ দিল ফিওরেন্তিনা

“এই ইউভেন্তুসকেই তো দেখতে চাই”, পার্মার বিপক্ষে দারুণ জয়ের পর বলেছিলেন আন্দ্রেয়া পিরলো। পরের ম্যাচেই দেখলেন ঠিক উল্টো চিত্র। ছন্নছাড়া এক ইউভেন্তুস এক যুগের মধ্যে প্রথমবারের মতো ঘরের মাঠে হারল ফিওরেন্তিনার বিপক্ষে।

সেরি আয় মঙ্গলবার রাতে ইউভেন্তুস স্টেডিয়ামে ৩-০ গোলে জিতেছে ফিওরেন্তিনা। লিগে ২০০৮ সালের পর এই প্রথম প্রতিযোগিতার সফলতম দলটির বিপক্ষে জিতল তারা।

এক ম্যাচ জয় তো পরের ম্যাচে ড্র, এভাবেই চলছিল ইউভেন্তুসের শিরোপা ধরে রাখার অভিযান। ৭২ মিনিট একজন কম নিয়ে খেলা দলটি এবার হেরেই গেল। চলতি আসরে তাদের প্রথম হার।

ইউভেন্তুসের দিক হারানোর শুরু ম্যাচের শুরু থেকেই। তৃতীয় মিনিটে এগিয়ে যায় ফিওরেন্তিনা। ফ্রাঙ্ক রিবেরির বাড়ানো থ্রু বলে দুসান ভ্লাহোভিচের প্রথম স্পর্শটা ছিল দুর্দান্ত। ওই টোকায় মাটাইস ডি লিখট ও লিওনার্দো বোনুচ্চিকে পেছনে ফেলে এগিয়ে যান তিনি। ইউভেন্তুসের দুই ডিফেন্ডার আর তার নাগাল পায়নি। আগুয়ান গোলরক্ষকের ওপর দিয়ে বাঁ পায়ের কোনাকুনি শটে জাল খুঁজে সার্বিয়ান ফরোয়ার্ড।

শুরুতেই পিছিয়ে পড়ার পর ধীরে ধীরে নিজেদের গুছিয়ে নিচ্ছিল ইউভেন্তুস। এরই মধ্যে খায় বড় ধাক্কা।

অহেতুক বিপজ্জনক ট্যাকল করে অষ্টাদশ মিনিটে লাল কার্ড দেখেন হুয়ান কুয়াদরাদো। ফিওরেন্তিনার ডি-বক্সে গায়েতানো কাস্ত্রোভিলিকে কলম্বিয়ান ফরোয়ার্ড ফাউল করলে শুরুতে হলুদ কার্ড দেখান রেফারি। পরে ভিএআর দেখে লাল কার্ড দেখান তিনি।

চলতি আসরে পঞ্চম এই লাল কার্ডের পর যেন খেই হারিয়ে ফেলে ইতালিয়ান চ্যাম্পিয়নরা। এক জন বেশি থাকার সুবিধা নিয়ে তাদের চেপে ধরে ফিওরেন্তিনা।

২৬তম মিনিটে ভয়চেখ স্ট্যাসনির দৃঢ়তার বেঁচে যায় ইউভেন্তুস। ডি-বক্সে আলগা বল পেয়ে কাছের পোস্ট ঘেঁষে বুলেট গতির শট নেন কাস্ত্রোভিলি। ঝাঁপিয়ে কর্নারের বিনিময়ে ব্যর্থ করে দেন স্বাগতিক গোলরক্ষক।

নিজের ছায়া হয়ে ছিলেন ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো, খুঁজেই পাওয়া যায়নি আলভারো মোরাতাকে। ফিওরেন্তিনার আক্রমণের ঝাপটা সামলে ৬ মিনিটের মধ্যে তিনটি সুযোগ পায় ইউভেন্তুস, তিনবারই দলকে হতাশ করেন রোনালদো।

৩২তম মিনিটে গতি আর পায়ের কারিকুরিতে ডি-বক্সে ঢুকে যান রোনালদো। কিন্তু শট লক্ষ্য রাখতে পারেননি পর্তুগিজ তারকা। চার মিনিট পর বিপজ্জনক জায়গা থেকে শটই নিতে পারেননি তিনি। ৩৭তম মিনিটে তার শট ছিল লক্ষ্যে, কিন্তু বেশ কাছে থাকায় ফেরাতে কোনো সমস্যা হয়নি গোলরক্ষকের।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকে আক্রমণাত্মক ফুটবলে ফিওরেন্তিনাকে চেপে ধরে ইউভেন্তুস। ৫৬তম মিনিটে চমৎকার হেডে বল জালে পাঠান রোনালদো। কিন্তু তিনি ছিলেন অফসাইডে।

একের পর এক আক্রমণেও গত ২৫ অক্টোবরের পর থেকে লিগে জয় না পাওয়া দলটির রক্ষণ ভাঙতে পারেনি ইউভেন্তুস। ৭৬তম মিনিটে আলেক্স সান্দ্রোর আত্মঘাতী গোলে আরও পিছিয়ে পড়ে দলটি।

সোফিয়ান আমরাবাতের ক্রস ক্লিয়ার করতে পারেননি বোনুচ্চি। তার পাশেই থাকা সান্দ্রোর পায়ে লেগে বল জড়ায় জালে। কিছুই করার ছিল না গোলরক্ষকের।

৮১তম মিনিটে স্কোরলাইন ৩-০ করে ফেলেন মার্তিন কাসেরেস। বোনুচ্চির কাছ থেকে বল কেড়ে নিয়ে রিবেরি বাড়ান ক্রিস্তিয়ানো বিরাঘিকে। তার নিচু ক্রস জালে পাঠান আরেক ডিফেন্ডার কাসেরেস।

১৩ ম্যাচে ছয়টি করে জয় ও ড্রয়ে ২৪ পয়েন্ট নিয়ে চারে আছে ইউভেন্তুস। ১৪ ম্যাচে ১৪ পয়েন্ট নিয়ে ১৫ নম্বরে উঠে এসেছে ফিওরেন্তিনা।

১৩ ম্যাচে ৩১ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে রয়েছে এসি মিলান। ১ পয়েন্ট কম নিয়ে দুই নম্বরে সান সিরোর আরেক দল ইন্টার মিলান। আপিলে জিতে আবার ইউভেন্তুসের বিপক্ষে খেলার সুযোগ পাওয়া নাপোলি ১২ ম্যাচে ২৪ পয়েন্ট নিয়ে রয়েছে তিন নম্বরে।

post source Facebook

DM Sayed
মানুষ কখনো হারে না, হয়তো সে জিতবে নয়তো সে শিখবে